লাল কার্ড নিয়ে যা বললেন গার্দিওলা

স্পোর্টস ডেস্ক : পেপ গার্দিওলা তাঁর কোচিং ক্যারিয়ারে তিনজন আলাদা ম্যানেজারের কাছে তিনবার করে হেরেছেন। ইয়ুর্গেন ক্লপ তার সর্বশেষ উদাহরণ। এই জার্মান কোচের কাছে ম্যানচেষ্টার সিটি কোচ শেষ তিন মাসে তিনবার হেরেছেন!
পরিসংখ্যান আরও বলছে, গার্দিওলার কোনো দলকে এক মৌসুমে তিনবার হারানো প্রথম দলটাও ক্লপের লিভারপুল। চ্যাম্পিয়নস লিগে গার্দিওলার সর্বশেষ ফাইনাল ২০১০-১১ মৌসুমে, বার্সেলোনা কোচ হিসেবে। এরপর বায়ার্ন মিউনিখ ও সিটি কোচ হিসেবে স্কোয়াডের পেছনে মোট ৭৫ কোটি পাউন্ড ঢেলেও দেখা পাননি আরেকটি ফাইনালের। স্প্যানিশ কোচের মর্মযাতনা তাই সহজেই অনুমেয়।কিন্তু গার্দিওলার দেশেরই রেফারি আন্তনিও মাতেও লাহোজকে এ কথা বোঝাবে কে? কাল রাতে গার্দিওলা নিজেই চেষ্টা করেছিলেন। পরিণামে দেখতে হয়েছে লাল কার্ড!লিভারপুলের মাঠে কোয়ার্টার ফাইনাল প্রথম লেগে ৩-০ গোলে হেরেছিল সিটি। কাল রাতে ঘরের মাঠে ফিরতি লেগেও ২-১ গোলে হেরেছেন গার্দিওলার শিষ্যরা। অথচ এ ম্যাচের ২ মিনিটে গ্যাব্রিয়েল জেসুসের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল কিন্তু সিটিই। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার কিছু সময় আগে সিটির অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার লেরয় সানের গোল অফসাইডের জন্য বাতিল করে দেন রেফারি মাতেও লাহোজ। গার্দিওলা সিদ্ধান্তটা মেনে নিতে পারেননি।বিরতির সময় গার্দিওলা তাই তেড়েফুঁড়ে ছুটে গিয়েছিলেন মাঠে। অফসাইডের সিদ্ধান্তটি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন লাহোজ এবং তাঁর সহকারীদের কাছে। গার্দিওলা এ সময় প্রতিক্রিয়াটা একটু বেশিই দেখিয়ে ফেলেছিলেন। হাত নেড়ে নেড়ে কথা বলেন এবং একবার মুখের সামনে আঙুল এনে চুপ করে থাকার ইঙ্গিতও করেন। স্প্যানিশ রেফারি লাহোজ তা মেনে নিতে পারেননি। পত্রপাঠ লাল কার্ড দেখিয়ে দেন গার্দিওলাকে। বিরতির পর তাই ডাগআউট নয়, সিটি কোচকে দলের হার দেখতে হয়েছে গ্যালারি থেকে।বিরতির সময় রেফারিকে গার্দিওলা ঠিক কি বলেছেন, ম্যাচ শেষে তা জানতে চেয়েছিল সংবাদমাধ্যম। সিটি কোচের ভাষ্য, ‘আমি বলেছি লেরয় সানের কাছে পাস দেওয়ার পর এটা গোল ছিল। এ কারণে সে লাল কার্ড দেখিয়েছে। ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থাকলে ফলটা অন্যরকমও হতে পারত।’সানের অফসাইড নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। তবে কোয়ার্টার ফাইনালের দুই লেগেই ম্যাচ পরিচালনার মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন গার্দিওলা, ‘অ্যানফিল্ডে সালাহর গোলটি অফসাইড হলেও ভিন্ন কিছু দেখা গেছে। সেই অ্যানফিল্ডেই আরও ভিন্ন কিছু ঘটেছে যখন গ্যাব্রিয়েল জেসুসের গোলটি অফসাইড ধরা হলো। এই টুর্নামেন্টে সব দলই সমান তাই রেফারির সিদ্ধান্তের প্রভাবটা গুরুত্বপূর্ণ।’গার্দিওলার এই লাল কার্ড তাঁর জন্য অনাকাক্সিক্ষত একটি মাইলফলকও। হোর্হে জেসাস ও হোর্হে সাম্পাওলির পর তৃতীয় কোচ হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগে সর্বোচ্চ দুটি লাল কার্ড দেখলেন এই স্প্যানিশ।